ঢাকা: বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

এক দশকে বলিউডে নায়িকাদের চুলের স্টাইলে যে পরিবর্তন এসেছে

বলিউড ফ্যাশন

গত ১০ বছরে চুলের যত্নের প্রবণতায় বেশ পরিবর্তন এসেছে। নব্বই-এর দশকে যেমন মাধুরীর স্টেপ কাটটি বেশ বিখ্যাত ছিল, ২০০০-এর দশকে লেজার এবং ফেদার কাটটি আলোচনায় এসেছিল। ২০১০ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত এই এক দশকে মেয়েদের চুলের ফ্যাশনে কী পরিবর্তন এসেছে দেখে নেয়া যাক।

২০১০

 hairstyles

এই সময়কালে, ছোট চুলের প্রবণতা এসেছিল এবং সেই সময়গুলিতে আসা অনেকগুলি সিনেমায় একই hairstyle দেখা গিয়েছিল। আপনাদের যদি বলিউড সিনেমা ‘কার্তিক কলিং কার্তিক’ এর দীপিকা এবং ‘অঞ্জনা অঞ্জনি’র প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার কথা মনে থাকে তবে দেখতে পাবেনর দুটি সিনেমাতেই ছোট চুল রয়েছে দীপিকা ও প্রিয়াঙ্কার।

২০১১
এই বছরে আসা প্রায় সমস্ত ছবিতে অভিনেত্রীদের চুলের স্টাইল একই ছিল। সে ‘লাভ ব্রেকআপ জিন্দেগি’র দিয়া মির্জা,’ ডন 2 ‘থেকে প্রিয়াঙ্কা,’ মেরে ব্রাদার কি দুলহান ‘থেকে ক্যাটরিনা বা’ লেডিস বনাম রিকি বাহল ‘থেকে আনুশকা। সে বছর অনেকগুলি চলচ্চিত্র মুক্তি পেয়েছিল এবং এই হেয়ার স্টাইলগুলি খুব জনপ্রিয় হয়েছিল।

২০১২

 hair styles

এই বছরটি কিছুটা আলাদা ছিল, চুলের স্টাইলে ওম্ব্রে ওয়েভ অনেকের কাছে খুব পছন্দের হয়েছিল। পাশাপাশি কালো চুলের ভারতীয় প্রবণতাও বেড়েছিল। প্রায় একই ধরণের চুলের স্টাইলগুলি দেখা যায় সেই বছর বেশিরভাগ সিনেমায়। ‘ককটেল’ ছবিতে দীপিকা পাড়ুকোনের হেয়ারস্টাইলে ওম্ব্রে দেখা যাচ্ছিল, সেখানে স্টুডেন্ট অফ দ্য ইয়ার’-এ আলিয়া প্লেইন ব্ল্যাক আর সানা সাইদকেও ওমব্রে স্টাইলে দেখা গেছে। ওই বছর এই দুই হেয়ার স্টাইল বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছে।

২০১৩
এই বছরই চুলের কার্ল আয়রন ফিরে এসেছিল। আনুশকা শর্মা থেকে শুরু করে দীপিকা পাডুকোন, সব অভিনেত্রীদেরই এই হেয়ার স্টাইলে দেখা যায়। এ বছর লম্বা চুলের পাশাপাশি কোঁকড়ানো চুলের স্টাইলগুলিও বলিউড এবং হলিউডের অনেকস সিনেমায় দেখা গেছে।

২০১৪

 hair styles

এ বছর আলিয়ার ছবি হাম্প্পি শর্মা কি দুলহানিয়া রিলিজ পায়, পাশপাশি জ্যাকলিন ফার্নান্দেজের ‘কিক’ রিলিজ পায়।যদিও আরও অনেক সিনেমা এসেছে এ বছর, তবে হেয়ার স্টাইলের হিসাবে, এই দুটি ছবিই সারা বছর ধরে স্টাইল দেখিয়েছে। এ বছর জ্যাকুলিনের হেয়ার স্টাইলও দারুণ ছিল পাশাপাশি আলিয়া ভাটের প্রায় সমস্ত চুলের স্টাইল ভাইরাল হয়। এই বছর বিয়ের সাজেও একই ধরনের চুলের স্টাইলের ট্রেন্ড ছিল।

২০১৫
এই বছর অনেক অভিনেত্রীকেই মিডিল পার্শিং ওয়েভে দেখা যায়। দেখুন ‘পিকু’র দীপিকা এবং’ তেভরের ‘সোনাক্ষীকে। দু’জনকেই প্রায় একই ধরনের চুলের স্টাইলে দেখা গেছে। মাঝারি তাদের চুলের কাট ওই বছর বেশ ভাইরাল হয়।

২০১৬

 hairstyles

‘ডিয়ার জিন্দেগি’র আলিয়া থেকে শুরু করে’ বেফিক্রে’-এর বনি কাপুর পর্যন্ত প্রায় সব অভিনেত্রীই এই বছর মাঝারি চুল ট্রেন্ড করেছিলেন। যদিও ২০১৫ সালের মিড পার্টিং লম্বা চুলের প্রবণতা অনেকগুলি সিনেমাতেও প্রদর্শিত হয়েছিল, তবে যে চুলের স্টাইল সত্যই মনোযোগ আকর্ষণ করেছিল তা এটাই ছিল। ‘বেফিক্রে’ -তে, বনি কাপুর তার চুল রঙ করেছিলেন এবং এটি সেটি ভাইরাল হয়েছিল এবং অনেক মেয়েই বনির মতো লাল রঙ করতে শুরু করেছিল।

২০১৭
এই বছর বেশ কয়েকটি সিনেমা রিলিজ হয়েছিল যার মধ্যে আনুশকা শর্মার চুলের স্টাইল নজর কেড়েছিল। ‘জাব হ্যারি মেট সেজাল’ ছবিতে, ছোট চুলের সাথে আনুশকার এই স্টাইল ছিল। এ বছর আলিয়ার ছবি ‘বদরিনাথ কি দুলহানিয়া’ও মুক্তি পেয়েছিল, তবে আলিয়া তার’ হাম্প্টি শর্মা কি দুলহানিয়া’-তে যে হেয়ারস্টাইলে ছিলেন, এ সিনেমাতেও একই স্টাইলে দেখা গেছে।

২০১৮

 hairstyles new

২০১৮ সালে প্রায় সব সিনেমাতেই মাঝারি চুলের একটি ট্রেন্ড দেখা গেছে। ‘হেট স্টোরি 4, স্ত্রী, রাজি, ঠগস অফ হিন্দোস্তান, সানজু, জিরো’র মতো সব সিনেমায় অভিনেত্রীরা এমন চুল রেখেছিলেন।

২০১৯
২০১৯ এর চুলের শৈলীতে তেমন কোনও পরিবর্তন হয়নি, বরং সেই ওয়েভ স্টাইলেরই আপগ্রেড সংস্করণগুলো দেখা যায়। যদি দেখা যায় তবে এই বছরের প্রায় সব ছবিতেই এই ধরনের হেয়ারস্টাইল দেখা গিয়েছিল। লং ওয়েভসের ফ্যাশন এখনও ট্রেন্ডে রয়েছে।

২০২০

 hairstyles

২০২০ সালে খুব বেশি সিনেমা মুক্তি পায়নি এবং যেগুলি মুক্তি পেয়েছে সেগুলোও ওটিটি প্ল্যাটফর্মে। তবে এতেও চুলের কিছু ট্রেন্ড দেখা গেছে। ট্রেন্ড মূলত দেখা গেছে হাইলাইট করা চুলের। এটি মূলত ফরাসি অনুপ্রাণিত পেইন্টেড হাইলাইটস লুক। চুলের রঙ খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে, সারা আলি খানের ‘লাভ আজ কাল ২’ থেকে আলিয়া ভাটের ‘সাদাক ২’ পর্যন্ত চুলের কালার বেশ জনপ্রিয় হয়েছে।

লেখাটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন। এই ধরনের আরও লেখার জন্য লাইভ অন বাংলার সঙ্গে থাকুন।

Rent for add

Facebook

for rent